ছবি-ঘর


বর্ধমান শহরের এক প্রান্তে এক নয়নাভিরাম স্থাপত্য নিদর্শন খাজা আনোয়ার বেড়। Late Mughal Architecture -এর একটি অনুপম চিহ্ন। তৈরী হয়েছিল মুঘল সম্রাট ফারুকশিয়ারের বদান্যতায়। সম্পত্তিগত ঝঞ্ঝাটে ধ্বংস হওয়ার দিন গুনছে। দেখতে গিয়েছিলাম এই আশ্চর্য স্থাপত্যটি। ক্যামেরা দেখেই রে রে করে ছুটে এলেন জায়গাটির মালিকরা। ছবি তুলতে দিলেন না। তাই ওখানের থেকে বেরিয়ে স্টেশনে বসেই মন থেকে এঁকে ফেললাম। 
একটি জলটুঙ্গি, একটি তিন গম্বুজ যুক্ত মসজিদ ছাড়াও আছে মুঘল ও বাংলা স্থাপত্যের মিশেলে তৈরী খাজা আনোয়ারের সমাধি। গম্বুজ মিনারের স্ট্রাকচারের দুপাশে দুটি বাংলার দোচালা যোগ হয়েছে। 
এমন জিনিস মনে হয় বাংলায় আর নেই।
আমার একটা পয়েন্ট এন্ড শ্যুট ক্যামেরা আছে। মানে কাজের জন্য কিনেছিলাম। সেই যন্ত্রটা দিয়ে অনেক চেষ্টা করে এই রকম ছবি তুলতে পারছি – যেখানে শুধু সাবজেক্ট-টাই ফোকাসে থাকে আর ব্যাকগ্রাউন্ড হবে আউট অফ ফোকাস। সব সময় যে সফল হয়, তা নয়। তবে মাঝে মাঝে হয়ে যায়। তখন বেশ লাগে।এই ভালো লাগাটা বোঝাই কি ভাবে ? …. এই যেমনসেদিন ভোরে দেখি উঠে বৃষ্টি বাদল গেছে ছুটেরড উঠেছে ঝিলমিলিয়ে গাছের ডালে ডালে